ঈদের ছুটিতে পর্যটকের ভিড়ে মুখরিত কমলগঞ্জের পর্যটন কেন্দ্র

admin | আপডেট: ০৪ মে ২০২২ - ১১:৫৪:০৯ পিএম

ডেস্কনিউজঃ ঈদের দিন বৃষ্টির কারণে পর্যটকদের আগমনে বিঘ্ন ঘটলেও দ্বিতীয় দিন বুধবার সকাল থেকে হাজার হাজার পর্যটকদের পদভারে মুখরিত হয়ে উঠেছে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যের অপার লীলাভূমি মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পর্যটন কেন্দ্রগুলো।

বিশেষ করে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী হামিদুর রহমানের স্মৃতিসৌধ, নয়নাভিরাম মাধবপুর লেক, হামহাম জলপ্রপাত, হরিনারায়নের দিঘী, চা বাগানসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পটগুলোতে যেন পা ফেলার ঠাঁই নেই। শুধুমাত্র লাউয়াছড়ায় প্রবেশ করেছেন কয়েক হাজার পর্যটক।

রাজস্ব আদায় হয়েছে আড়াই লাখ টাকা।

পর্যটকদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশের পাশাপাশি স্থানীয় কমলগঞ্জ থানার ভাপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়ারদৌস হাসানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম সকাল থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত স্পটে পর্যটকদের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিলেন। প্রায় দুই বছর পর পর্যটকখাতে প্রাণ ফিরেছে বলে সংশ্লিষ্টরা অভিমত ব্যক্ত করেছেন। আরো দুদিন ভিড় থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আজ বুধবার (৪ মে) মাধবপুর লেক ও লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ঘুরে দেখা যায়, লাইট্রেস, কার, জিপসহ নিজস্ব প্রাইভেটকার নিয়ে দূর-দূরান্ত থেকে ভ্রমণ পিয়াসুদের ভিড়। নানা শ্রেণীর মানুষের উপস্থিতিতে অন্যরকম একটা পরিবেশ সৃষ্টি হয় এলাকাগুলোতে। কেউ এসেছেন সপরিবারে, কেউ দলবেঁধে। ঈদের দিনের চেয়েও আজ বুধবার পর্যটকদের ভিড় ছিল অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশি। বৃষ্টি উপেক্ষা করেও পর্যটকরা ছুটে এসেছেন জীববৈচিত্র্যের অপরূপ সমাহার ঘুরে দেখতে।

কমলগঞ্জের মাধবপুর লেকের মনোরম দৃশ্য পাহাড়ি টিলার ওপর সবুজ চা বাগানের সমারোহ, জাতীয় ফুল শাপলার আধিপত্য, ঝলমল স্বচ্ছ পানি, ছায়া নিবিড় পরিবেশ, শাপলা শালুকের উপস্থিতি আনন্দের বাড়তি মাত্রা যুক্ত করেছে। লেকের চারপাশ পায়ে হেঁটে পর্যটকরা ঘুরে দেখেন।

কথা হয় ঢাকা থেকে আগত সরকারি চাকরিজীবী সাইদুর রহমান। তিনি বলেন, দীর্ঘ দুই বছর ঘরে বন্দি ছিলাম। করোনাকালীন পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ ছিল। তাই এবছর ছুটিতে ঘুরতে এসেছি। খুবই ভালো দিন কেটেছে।

আরেক পর্যটন কেন্দ্র লাউয়াছড়ায় তো প্রবেশ করাই দায় ছিল। শতাধিক গাড়ি লাউয়াছড়ার প্রবেশ মুখে যানজট সৃষ্টি করে। ট্যুরিস্ট পুলিশ ও স্থানীয় বনবিভাগের লোকজন ভিড় সামলাতে হিমশিম খান।

বনবিভাগের টিকেট কাউন্টার সূত্র জানায়, প্রথম দিন ও দ্বিতীয় দিন মিলে প্রায় ৩ হাজার পর্যটক লাউয়াছড়ায় এসেছেন। টিকেট ও পার্কিং হতে প্রায় আড়াই লাখ টাকা সরকারি রাজস্ব আদায় হয়েছে।

লাউয়াছড়ায় জাতীয় উদ্যানে আগত পর্যটকরা জানান, কমলগঞ্জের লাউয়াছড়ার বন একটি সমৃদ্ধ বন। বানরসহ প্রাকৃতিক অপরূপ সৌন্দর্য আর জীববৈচিত্র্যে ভরপুর এই বনটি যে কেউ দেখলে মন জুড়িয়ে যায়।

মৌলভীবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের দায়িত্বরত নবী আলী জানান, ঈদের ছুটিতে লাউয়াছড়া ও মাধবপুর লেকে হাজার হাজার পর্যটক ঘুরতে এসেছেন। তাদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশ কাজ করছে।

বিপুল/বুধবার, ০৪ মে ২০২২খ্রিস্টাব্দ/ রাত ১১.৫০

▎সর্বশেষ

ad