মা-বোনের পর চলে গেল ১৮ মাসের নাসরুল্লাহ

Ayesha Siddika | আপডেট: ০৬ জুলাই ২০২২ - ০৩:৪১:৩২ পিএম

ডেস্ক নিউজ : দিনাজপুরে তেলবাহী লরির ঢাক্কায় মা ও বোনের মৃত্যুর পর এবার মারা গেল ১৮ মাসের শিশুটিও। দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ বুধবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। এদিকে, মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন তার বাবা মোহাম্মদ হোসাইন (৪০)। আজ ভোর পৌনে ৫টায় হাসপাতালের সামনে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুটির মা ফাইমা বেগম (৩০) ও তার বোন ১৩ বছর বয়সী বিউটি মারা যান। এ দুর্ঘটনায় বাবা ৪০ বছর বয়সী মোহাম্মদ হোসাইন ও ১৮ মাস বয়সী শিশু সাইফুল ইসলাম নাসরুল্লাহ গুরুতর আহত হন।  

আহত মোহাম্মদ হোসাইন জেলার বিরল উপজেলার তেঘরা দারুল হাদীস সালাফিয়্যাহ মাদরাসার প্রধানশিক্ষক। আহত শিক্ষক মোহাম্মদ হোসাইন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাট উপজেলার পাঁচটিকরি গ্রামের বাসিন্দা। তারা তেঘরা গ্রামে ভাড়া বাড়িতে বসবাস করছিলেন। নিহতের চাচা মোহাম্মদ হাসান জানান, দুপুরে যখন আমরা ভাবি ও ভাতিজির মরদেহ অ্যাম্বুল্যান্সে তুলছিলাম, সেই সময় শিশু নাসরুল্লাহ মারা যায়। ভাই এই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।  

কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, ঈদের ছুটি পাওয়ায় ভোরে দুই সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে একটি মোটরসাইকেলে গ্রামের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের উদ্দেশে রওনা দেন। পথিমধ্যে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সামনে পেছন দিক থেকে তেলবাহী একটি লরি মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে রাস্তায় পড়ে মা ও মেয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হন। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। স্থানীয়রা গুরুতর অবস্থায় মোহাম্মদ হোসাইন ও শিশুছেলে সাইফুলকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিশুর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 

 

কিউটিভি/আয়শা/০৬ জুলাই ২০২২, খ্রিস্টাব্দ/বিকাল ৩:৪০

▎সর্বশেষ

ad