ফারহা মৌরিন মৌ এর কবিতাঃ সব শূন্য অথবা অতিপূর্ণ

superadmin | আপডেট: ৩০ ডিসেম্বর ২০২২ - ০৭:১৭:৩০ পিএম

সব শূন্য অথবা অতিপূর্ণ
__________________

তুমি যখন একবার তোমার জায়গাটি ছেড়ে দেবে,
তুমি যখন ঘটতে ঘটতে ঘটে যাবে,
এমন হবো হবো অবস্থায়
নতুনত্বের স্বাদ চাখতেই
অন্য কোথাও চলে যাবে,
আচ্ছা আচ্ছা বাবা ঠিক আছে-
অত বোকাও তুমি নও জানি তো!
পুরোনোকে কিছুটা হাতেও রাখতে চাইবে,
কী তাই তো?

তুমি তখন খুব মশগুল রয়েছ
নূতনকে নিয়ে।
শুধু মানুষ নয়, নতুন নতুন সবকিছুই
ভীষণ আবেদনের হয়।
খুলে খুলে দেখতে ইচ্ছে হয়,
নাড়তে ইচ্ছে হয়,
চাখতে ইচ্ছে হয়,
নতুন সময়কে আরো সময় দিতেও ইচ্ছে হয়!
দোষের কি ? না দোষের নয় তো!

আচ্ছা, এইযে নূতনকে নিয়ে মেতে রইলে
একটু হিসেব করো তো! কতদিন হলো?
পুরোনো হয়ে যাচ্ছে না তো?
একটু তেতো তেতো স্বাদ! ঠিক না?
মিষ্টিই ছিলো শুরুতে,
ওইযে, অভাবটা?
ওটা বেশ পূরণ করে দিয়েছিলো ।

প্রতিবারই দেয়!
কিন্তু পুরোনোও হয়ে যায়…
এই যেমন, সাম্প্রতিককেও
একটু একটু করে আবার পুরোনো লাগছে
পানসে লাগছে!

এবার কী করবে, ভেবে দেখলে?
পুরোনোকে ভেবে
বেশ নস্টালজিক হচ্ছো কিন্তু এবার!
প্রত্যাবর্তন করতে চাইছো।
ফিরে যাচ্ছো-
এই চলেই এসেছো!
নক করছো দরজায়…

পুরনোর পাশে বসে আছে
তার নূতন।
চকচকে, ঝকঝকে, ধবধবে !
নিজেকে একবার দেখো এবার,
করো করো, তুলনা করো!!
হুমমম… আর যে মানাচ্ছে না!
নিজেকে জং ধরা মনে হচ্ছে
মনে হচ্ছে রুগ্ন, শুষ্ক, অসার…
এতো প্রেমপূর্ণ অভিজ্ঞতার কিচ্ছুটি যেন
বিন্দুমাত্র মননে লেগেই নেই!
পুরোনো জায়গাটিও যে খালি নেই!

সবই শূন্য,
অথবা
অতিপূর্ণ!

 

 

লেখিকাঃ ফারহা মৌরিন মৌ। কবি এবং বাচিকশিল্পী। নিয়মিত লেখালিখি, আবৃত্তিচর্চা এবং কণ্ঠশিল্পী হিসেবে কাজ করছেন। বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর লেখা বিশেষ আবেদন সৃষ্টি করে।

 

 

কিউএনবি/ বিপুল/ ৩০.১২.২০২২/ সন্ধ্যা ৭.১৬

▎সর্বশেষ

ad