মুশরেখা নাজনীন রুনা’র বিশ্লেষণধর্মী লেখাঃ আহমদ ছফা’র ”গাভী বিত্তান্ত”

superadmin | আপডেট: ০৭ নভেম্বর ২০২২ - ১১:৫৮:২২ পিএম

 আহমদ ছফা’র ”গাভী বিত্তান্ত”
————————————-

“ঘরের শত্রুই বিভীষন” এই কথা টির সাথে মিল রেখে চিন্তাবিদ ও লেখক আহমদ ছফা স্যার এর বাস্তবধর্মী একটি সনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য আবু মো জুনায়েদ সাহেব এর জীবন এর একটা অংশ নিয়ে বিভিন্ন কথার সাহায্যে ঘরে বাইরে বিভিন্ন জটিলতা এবং বাস্তবতার সাহায্য নিয়ে এই বইটি রচনা করেছেন।

জুনায়েদ সাহেব উপচার্য হওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় এর অভ্যন্তরে নোংরা রাজনীতি,অভ্যন্তরীন গোলযোগ, শিক্ষকদের স্বার্থপরতা,কাকে মেরে কে বড়লোক হবে, এসব নিয়ে নানা জটিলতায় পড়েন। তিনি যেন বাইরে কোথাও শান্তি পান না। অন্যদিকে তার পরিবার এর তার স্ত্রী খুবই হিংসুটেপরায়ণ নিজের স্বামী উপচার্যের আসনে বসার পর নিজেকে রাণি ভাবতে শুরু করেন এবং তিনি নিজের স্বামী কেও নানাভাবে অপমান করতে থাকেন। বারবার তাকে নিজের ভাগ্যের জন্য উপচার্যের আসনে বসতে পেরেছেন বলে কথা শুনান। আবু জুনায়েদ যেন ঘরে বাইরে কোথাও শান্তি পান না। নিজের মেয়েটাও কুকর্মে লিপ্ত হয়ে যায়। অবশেষে তিনি সব চিন্তা মাথায় না নিয়ে একটি গাভী পালা শুরু করেন এবং গাভীটিকে নিজের প্রিয় মানুষ ভাবা শুরু করেন, তার কাছেই দিন, রাত যেটুকু সময় অবসর পান ওই গাভীটির কাছে থাকেন। তিনি মনে করেন তার জীবনে যেন শান্তি ফিরে পেল।

কিন্তু আবু জুনায়েদ এর স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগম তার স্বামী,সন্তান এর থেকে দূরত্ব হওয়ার কারণ ওই গাভীটিকে মনে করেন কারণ আবু জুনায়েদ সব থেকে প্রিয় বস্তু তার গাভীর সাহচর্যে থাকতেন সবসময়। হিংসাপরায়ণ হয়ে অবশেষে বিষ খাইয়ে গাভীটি কে মেরে ফেলেন। ফলে উপচার্য অনেক হতাশায় চলে যান।

যান্ত্রিক এ জীবনে যেন শান্তি নেই, কে কাকে মেরে আগে যাবে, কে কত আধিপত্য লাভ করবে, হিংসে বিদ্বেশ এর ছড়াছড়ি, এই দিকগুলো নিয়ে চিন্তাবিদ আহমদ ছফা স্যার এর সুন্দর লেখনী “গাভী বিত্তান্ত”।

 

 

লেখিকাঃ মুশরেখা নাজনীন রুনা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, দর্শন বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। লেখারই তাঁর ফেসবুক টাইমলাইন থেকে সংগৃহিত।

 

 

 

বিপুল/০৭.১১.২০২২/রাত ১১.৪৫

▎সর্বশেষ

ad