গর্ভাবস্থায় কেশরের উপকারী প্রভাব

Ayesha Siddika | আপডেট: ০৬ জুলাই ২০২৪ - ০৪:৪৬:১৮ পিএম

লাইফ ষ্টাইল ডেস্ক : গর্ভাবস্থায় একজন নারীর সর্বোচ্চ যত্ন প্রয়োজন। কারণ তার মধ্যেই বেড়ে ওঠে আরেকটি প্রাণ, যার পুষ্টির যোগান আসে মায়ের থেকেই। তাই এই সময় মায়ের জন্য পুষ্টিকর খাবারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হয়। আমাদের সংস্কৃতিতে অনেক আগে থেকেই কেশর দুধ পানের একটি প্রচলন ছিল। যদিও তার সাথে কিছুটা ভ্রান্ত ধারণা যুক্ত ছিল। আগের দিনে মা-খালারা বলতেন কেশন দুধ পান কররে নবজাতকের গায়ের রঙ ফর্সা হবে। যদিও এই ধারণা সঠিক নয়। তবুও কেশর দুধের নানা উপকার তো রয়েছেই।    

অনেক স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ এই সময় কেশর বা জাফরান খাওয়ার পরামর্শ দেন। কেশরের উপকারিতা সম্পর্কে জানিয়েছেন, ভারতীয় চিকিৎক সুরভী সিদ্ধার্থ। তিনি বলেন,‘ কেশর প্রাকৃতিক এন্টিঅক্সিডেন্টেস এর বেশ ভালো একটি উৎস। এছাড়া গর্ভকালীন প্রদাহ দূর করার ক্ষমতার কারণে, কেশর মাতৃত্বকালীন সময়ের অত্যবশ্যকীয় খাদ্যতালিকার অন্তর্ভুক্ত হয়।’ তিনি আরও বলেন,‘শিশুর ত্বকের রঙ জেনেটিকভাবেই নির্ধারিত হয়। গর্ভবতী মা কি খাচ্ছেন বা না খাচ্ছেন এতে শিশুর বাহ্যিক রূপে প্রভাব পড়ে না।’

কেশর / ছবি: সংগহীত


এছাড়াও, কেশরে অ্যান্টি-ডিপ্রেসেন্ট উপাদানও থাকে। এই কারণে মেজাজ নিয়ন্ত্রণে রাখা এবং উদ্বেগ কমানোর ক্ষেত্রেও কেশর প্রভাব ফেলে। ফলে মায়ের উপর মানসিক চাপ কম পড়ে। গর্ভধারণের প্রথম দিকে (৩ মাস) নানাবিধ স্বাস্‌থ্য সমস্যার প্রকোপ দেখা যেতে পারে। কেশর খাওয়ায় সেইসব সমস্যা সীমিত হয়।

এছাড়াও শিশু যখন বাড়তে থাকে তখন, মায়ের শরীরের পেশি প্রসারিত হয়। প্রাকৃতিকভাবে নারী শরীরের এই সামঞ্জস্য রাখার প্রক্রিয়া চলে, যেন শিশু বেড়ে ওঠার জায়গা পায়। এই প্রক্রিয়া বেশ ব্যথাদায়ক, বিশেষ করে পেট- পাকস্থলী, পা, পিঠ- এসব স্থানে। কেশর এই ব্যথাকে প্রশমিত করতে সাহায্য করতে পারে।

হবু মায়েদের অনেকে রক্তশূন্যতায় ভোগেন বলে চিকিৎকরা আয়রন সমদ্ধ খাবার খেতে বলেন। প্রতিদিন কিছু পরিমাণে কেশর খেলে আয়রন এবং হিমোগ্লেবিন মাত্রা বিপদহীন মাত্রায় থাকে। শুধু তাই নয়, ভালো মেজাজে ঘুম এবং ত্বকের নানারকম সমস্যাও দূর হয় প্রতিরাতে ঘুমানোর আগে কেশর দুধ খেলে।

এসব মন্তব্যে সহমত প্রকাশ করেছেন ডা.সুরভীও। তবে কেশরের কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও আছে, যা তিনি উল্লেখ করেছেন। কিছু মায়েদের বেলায় কেশর খাওয়ার পর বমি বমি ভাব হয় এবং উদ্বেগ বেড়ে যায়। শুধু তাই নয়, সমস্যা গুরুতর হলে নাক দিয়ে রক্তপাতও হতে পারে। তাই অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী যেকোনো কিছু গ্রহণ করা উচিত।  

 

 

কিউটিভি/আয়শা/০৬ জুলাই ২০২৪,/বিকাল ৪:৪০

▎সর্বশেষ

ad