বন্ধুর সাফল্য দেখে ঈর্ষা বা ব্যর্থ মনে হয় নিজেকে! সমাধান কী?

Rakhi Majumder | আপডেট: ০২ আগস্ট ২০২২ - ১১:১৪:৩০ এএম

লাইফ ষ্টাইল ডেস্ক : জীবনে বন্ধুর গুরুত্ব অনেক। বন্ধু ছাড়া আবার জীবনে চলে না কি! তবে বন্ধুর সব সাফল্য কী নিজের সাফল্য বলে মনে হয়? এ নিয়ে রয়েছে অনেক বির্তক। অনেকের মতেই, কাছের মানুষের উন্নতিতে বেশিরভাগ সময়ই না কি মন খুশি হয় না। একটি অতৃপ্তি কাজ করে বা ব্যর্থ মনে হয় নিজেকে। কিন্তু কেনো?

প্রিয় বন্ধু এত ভাল চাকরি পেয়েছেন। তাকে শুভেচ্ছা জানানো হল। কিন্তু যতটা খুশি হওয়ার কথা, তা হওয়া গেল না! আত্মীয়ের বিবাহবার্ষিকীতে জাঁকজমক দেখে মনে হল, সব সুখ কী অন্যের? আমার সঙ্গে কি ভাল কিছুই হতে নেই! এরা প্রত্যেকেই প্রিয় মানুষ। কেউ ওদের অনিষ্ট চাই না! তবে অন্যের খুশিতে তেমন আনন্দ বোধ করছি না! তবে কি হিংশুটে হয়ে গেলাম? এমন চিন্তাগুলি অনেকের মনে প্রায়ই আসে।

বন্ধু, ভাই-বোন, সহকর্মী। এমনকি নিজের সঙ্গী। সে যিনিই হোন না কেন, ঈর্ষা ঢুকে পড়তেই পারে সম্পর্কের মধ্যে। এ প্রবণতা সব সময়ে হয়তো নিয়ন্ত্রণ করাও যায় না। তার চেয়েও বড় কথা বোঝাই যায় না অনেক ক্ষেত্রে, পরিস্থিতি ঠিক কখন হাতের বাইরে বেরিয়ে যাচ্ছে।

নিজের ঈর্ষার মুখোমুখি কী ভাবে দাড়ানো যায়, এ নিয়েই এবার কথা বলেছেন ভারতীয় মনোবিদ অনুত্তমা বন্দ্যোপাধ্যায়।  
এই প্রসঙ্গে একজন তার মনের কথা ব্যক্ত করে লেখেন, “ইদানীং আমি কারও আনন্দেই তেমন খুশি হতে পরছি না। এর কারণও ঠিক বুঝে উঠতে পারছি না। আমার বয়স ৩০। আমি চাকরির পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। এই মুহূর্তে আমার জীবনে বিশেষ কোনও অপ্রাপ্তি আছে, এমনটা নয়। মায়ের সঙ্গে এই বিষয়ে কথা বলতে গেলেই তিনি রেগে যাচ্ছেন! আমার একদম ভাল লাগছে না!”

এমন প্রশ্নের উত্তরে অনুত্তমা বলেছেন, “ঈর্ষার মধ্যে সব সময়েই একটা না পাওয়ার বোধ কাজ কারে। অন্যর সাফল্য দেখে মনে হতেই পারে, এদের মধ্যে আমার জীবনটিই ঠিক পথে এগলো না। তবে এটা ভেবে দেখেছেন কখনও, যাকে দেখে আপনার ঈর্ষা হচ্ছে, তারও তো অনেক না পাওয়া থাকতে পারে। কোনও নির্দিষ্ট একটি ক্ষেত্রে জীবনকে সজ্ঞায়িত করা কি আদৌ যুক্তিযুক্ত?

সব ভাল ওদের, সব খারাপ আমার এই বিভাজনের মধ্যেও কিন্তু অতিরঞ্জন আছে। সামনের মানুষ যেমন আপনাকে তৃতীয় কোনও ব্যক্তির সঙ্গে তুলনা করলে ভাল লাগে না, তেমনই আমরাও নিজেরা কিন্তু অপরের সঙ্গে নিজের তুলনা করি। এ ক্ষেত্রে কিন্তু নিজেদের মনে সচেতন বাঁধ রাখতে হবে। ওর সবটা কিন্তু আপনি জানেন না, আপনার ইতিহাসও ওর জানা নেই।” 

তিনি আরও বলেন, “তাই তুলনাটা আদৌ ঠিক কি না, তা ভেবে দেখতে হবে। ঈর্ষা থেকে যদি সত্যিই মুক্তির পথ খুঁজতে হয়, তা হলে নিজের সম্পর্কেও আর একটু সচেতন হতে হবে। আমরা নিজেদের ঈর্ষার কারণেও জীবনে অনেক ভাল অভি়জ্ঞতা থেকে বঞ্চিত হয়ে জাচ্ছি না তো? অন্যের ভাল জিনিসটা দেখে ঈর্ষা বোধ করতে গিয়ে সত্যিই কোনও ভাল জিনিস হয়তো উপভোগই করা হল না!

ঈর্ষার সঙ্গে বোঝাপড়ায় এলে আমরা দেখতে পাব অনেক ভাল লাগার সম্ভার উন্মোচিত হচ্ছে। সেই সম্ভারটুকু সন্ধান করলেই বোধ হয় অনেক অপ্রাপ্তি লঘু মনে হবে। সেই চেষ্টা করেই দেখুন না!”

সূত্রঃ আনন্দবাজার অনলাইন

কিউটিভি/অনিমা/০২ অগাস্ট ২০২২, খ্রিস্টাব্দ/সকাল ১০:১৪

▎সর্বশেষ

ad