‘ভারতের করোনা টিকা অবশ্যই ভালো’ স্বীকার করছে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতে তৈরি কভিড-১৯ টিকা বেশ কয়েকটি দেশে গুরুত্ব পাওয়ায় চীন অবশেষে স্বীকার করছে, ‘ভারতের করোনা টিকা অবশ্যই ভালো।’ পাশ্চাত্যের পত্রপত্রিকায় খবর বেরিয়েছে, ভারতীয় বিশেষ জ্ঞান ফলপ্রদ টিকা উদ্ভাবনে সক্ষমতা অর্জন করেছে, সম্ভবত এ বোধ থেকেই চীন এখন মানছে যে, তার চেয়ে ভারত কোনো অংশে কম নয়। চীন কমিউনিস্ট পার্টির মুখপত্র ‘গ্লোবাল টাইমস’কে জানায়, জিলিন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব সায়েন্সের বিজ্ঞানী জিয়াং চুনলাই বলেন, জেনেরিক ওষুধ উৎপাদনে ভারতের সুখ্যাতি রয়েছে। এখন দেশটি কভিড ভ্যাকসিন তৈরিতে যে নৈপুণ্য দেখাচ্ছে তা চীনা নৈপুণ্যের পেছনে নয়।

জিয়াং চুনলাই সম্প্রতি ভারত বায়োটেক দেখে গেছেন। তিনি বলেন, সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া হচ্ছে টিকা উৎপাদনে বিশ্বের বৃহত্তম প্রতিষ্ঠান। উৎপাদনে বিশুদ্ধতা, দ্রুত সরবরাহের সক্ষমতা-দক্ষতার দিক থেকে এরা পাশ্চাত্যের কয়েকটি দেশ থেকেও শক্তিশালী। এসব কারণে বিশ্ববাজারে ভারতীয় টিকার চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে ১৫ লাখ ভ্যাকসিন নেবে। ব্রাজিলও চাইছে এ ভ্যাকসিন। এ ছাড়া মালয়েশিয়াসহ কয়েকটি আসিয়ানভুক্ত দেশও ভারতীয় টিকার জন্য অর্ডার দিয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ওয়াদা করেছেন ‘আমাদের টিকা সব মানুষের জন্য সুলভ করা হবে।’ভিন্ন দেশের করোনা টিকা দ্রুত প্রাপ্তিতে সহযোগিতার বেলায় ভারত ‘এইচসিকিউ মডেল’ ব্যবহার করতে পারে। করোনার প্রতিষেধক হিসেবে ম্যালেরিয়ার ওষুধ ব্যবহার করার পক্ষে গবেষকরা মত দেওয়ার পর পর ৮২টি দেশকে ৫০ কোটি এইচসিকিউ (হাইড্রোরক্সি ক্লোরোকুইন) ট্যাবলেট বাণিজ্যিক সরবরাহ করেছিল।

 

 

কিউটিভি/আয়শা/১৩ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ/রাত ৮:১৩

শেয়ার করুন